উপদেষ্টার বাণী

স্টামফোর্ড গ্রুপের পক্ষ থেকে সবাইকে স্বাগতম। বাংলাদেশে ১৯৯৫ খ্রীষ্টাব্দে স্টামফোর্ড ট্রাস্ট-এর উদ্যোগে যাত্রা শুরু করে স্টামফোর্ড কলেজ। ধানমন্ডি’র অভিজাত এলাকায় নিরিবিলি ও কোলাহলমুক্ত, শিক্ষাপেযোগী পরিবেশে কলেজটির অবস্থান। শিক্ষাবোর্ড প্রণীত সিলেবাস-এর আলোকে আধুনিক ও দ্বি-বার্ষিক পাঠ পরিকল্পনা, গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ড শিক্ষাদান এবং যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলার কারণে খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই স্টামফোর্ড কলেজ ছাত্র-শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষানুরাগী ও সুধী সমাজে স্বীকৃতি লাভ করে। বাংলাদেশে উচ্চ শিক্ষা বিস্তারের ধারাবাহিকতায় স্টামফোর্ড ট্রাস্ট ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠা করে স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশে। ইতোমধ্যেই স্টামফোর্ড কলেজ ও  স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এদেশে উচ্চ শিক্ষা বিস্তারে নতুন একটি অধ্যায়ের সূচনা করেছে।

শিক্ষা জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় উচ্চমাধ্যমিক পর্ব। আর এই লক্ষ্য পূরণে শিক্ষার্থীদের সুযোগ্য করে গড়ে তোলার জন্য আনুষঙ্গিক সকল সুবিধা দিয়ে আসছে স্টামফোর্ড কলেজ। আশা করছি এর ফলে শিক্ষার্থীরা তাদের পরবর্তী শিক্ষা জীবনে সুপ্রতিষ্ঠিত কোন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ-এ ভর্তির সুযোগ পাবে। স্টামফোর্ড কলেজের সাথে সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষানুরাগী ও সুধীবৃন্দকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। স্টামফোর্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের একমাত্র লক্ষ্য হবে বিশ্বায়নের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে শেখা, প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা এবং কর্মক্ষেত্রে নিজের অবস্থান সুদৃঢ় করা। স্টামফোর্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের মেধা ও পরিশ্রমী মনোভাব বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ-কে আরও বেশি গৌরবান্বিত করবে।

আশা করছি বিগত বছরগুলোর ন্যায় এবারও উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে  স্টামফোর্ড কলেজ শিক্ষক, শিক্ষানুরাগী, অভিভাবক ও সুধী সমাজের সহযোগিতা পাবে।

সবাইকে ধন্যবাদ।

 

 

রুমানা হক রিতা

উপদেষ্টা,

স্টামফোর্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

মেম্বার, বোর্ড অব ট্রাস্ট্রিজ,

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ

 

X